কিভাবে একটা ব্লগে ট্রাফিক বাড়ানো যায় (১২তম দিন)

এখন পর্যন্ত আপনারা একটা করে ল্যান্ডিং পেজ তৈরি করেছেন যেটা কিনা আপনার পাঁচ দিনের একটা ছোট্ট কোর্সের অ্যাডভারটাইজ বা বিজ্ঞাপন করে দেবে। অন্য দিকে ওই মিনি কোর্সটা আপনার কোনো একটা অ্যাফিলিয়েট প্রোডাক্টকে প্রমোট করবে।

এখন আপনাদের যেটা দরকার সেটা হলো আপনার ল্যান্ডিং পেজটাতে অনেক অনেক ভিজিটর। পরবর্তী কয়েকটা লেসনে আপনারা আপনাদের ল্যান্ডিং পেজে ভিজিটর বাড়ানোর অনেক গুলো নিশ্চিত উপায় জেনে যাবেন।

চলুন তাহলে একটা ব্লগ থেকেই শুরু করা যাক-

আপনারা চাইলে এখন থেকেই একটা ওয়ার্ডপ্রেস ব্লগ চালু করে নিতে পারবেন। আপনারা যদি আমার আগের নির্দেশনা অনুযায়ী HostGator ব্যবহার করে থাকেন তাহলে নিচে একটা ব্লগ ইন্সটল করার সহজ ধাপগুলো বলা হলো।

টিপসঃ আপনি যদি HostGator ব্যবহার না করে থাকেন তাহলে আপনাকে WordPress.org তে গিয়ে দরকারি কিছু ফাইল ডাউনলোড করে নিতে হতে পারে। ওই সাইটের নির্দেশনা অনুসরণ করলেই সব পেরে যাবেন।

নিচে সিপ্যানেলের লগইন ফর্ম দেখানো হচ্ছে ।

  1. আপনার কনট্রোল প্যানেল এ লগ ইন করুন (সাধারণত www.yourdomain.com/cpanel এ) । 
  2. নিচের দিকে গিয়ে “Fantastico DeLuxe” খুঁজে বের করে তাতে ক্লিক করুন
  3. আপনার স্ক্রিনের বামপাশে “WordPress” ইন্সটল করার লিঙ্কে ক্লিক করুন।
  4. প্রয়োজনীয় সকল তথ্য প্রবেশ করান (যেমন- আপনার কাঙ্ক্ষিত ইউজারনেম, পাসওয়ার্ড এবং আপনি কোথায় আপনার ব্লগ দেখাতে চান)। তারপর লিঙ্কটাতে ক্লিক করে আপনার ব্লগ ইন্সটল করে ফেলুন।
  5. আপনার ব্লগ কোথায় দেখাচ্ছে সেটা দেখে নিয়ে লগ ইন করুন।

এরপর আপনারা চাইলে ওয়ার্ডপ্রেস থিম ডাউনলোড করে আপনাদের ব্লগের ডিজাইন পরিবর্তন করে নিতে পারবেন। সরাসরি WordPress.org তে গিয়ে থিম ব্রাউজ করে নিতে পারবেন অথবা গুগলে ওয়ার্ডপ্রেস থিম লিখে সার্চ করলেই পেয়ে যাবেন। এক্ষেত্রে আপনারা আপনাদের নিস সাইট সম্পর্কিত কিছু লিখে দিতে পারেন যেমন “Fitness WordPress Themes” ।

আপনার পছন্দের থিমটা ডাউনলোড করে yourdomain.com/wpcontent/themes/ লিঙ্কে আপলোড করুন। তারপর আপনার ব্লগে লগইন করে Appearance এ গিয়ে আপনার আপলোড করা থিমটা অ্যাক্টিভেট করুন।

আপনার ব্লগ শুরু হবার জন্য এখন পুরোপুরি প্রস্তুত।

এখন আপনারা চাইলে সরাসরি পোস্টে গিয়ে আপনার ওয়ার্ডপ্রেসে নতুন পোস্ট অ্যাড করতে পারবেন অথবা আপনার পূর্বে তৈরি করা কোনো পোস্ট কপি করে এখানে পেস্ট করে দিতে পারবেন। তাছাড়া আপনারা চাইলে এখানে সরাসরি টাইপ করেও নতুন পোস্ট লিখতে পারবেন। কপি পেস্ট অথবা সরাসরি টাইপ করার পর পাবলিশ এ ক্লিক করলেই আপনার নতুন পোস্ট যুক্ত হয়ে যাবে।

এখন কথা হলো আপনি কোন সম্পর্কে লিখবেন অথবা কোন বিষয়ে লেখা উচিৎ?

আবারো বলে দিচ্ছি, আপনারা শুধু মাত্র আপনার নিস সাইট সম্পর্কিত লেখাই লিখবেন না, এমন কিছু লেখবেন যেটা আপনি যে অ্যাফিলিয়েট প্রোডাক্ট প্রমোট করবেন সেই সম্পর্কিতও হতে হবে। আপনার চাইলে ৫০ শব্দের ছোট্ট একটা টিপস থেকে শুরু করে অনেক বড় একটা আর্টিকেল পর্যন্ত লিখতে পারেন।

চলুন ধরে নেয়া যাক আপনি একটা ব্লগ তৈরি করেছেন যেটা কুকুরকে কিভাবে ট্রেইন করা যায় অথবা কিভাবে ক্লিকার ব্যাবহার করা যায় সে সম্পর্কিত। সেক্ষেত্রে কি ধরনের পোস্ট করা যেতে পারে তার কিছু উদাহরণ এখানে দেয়া হলো।

  • কিভাবে একটা “clicker” ব্যবহার করা যায় তার ছোট্ট একটা টিপস।
  • “কিভাবে একটা কুকুরকে বসতে শিখানো যায়” তার উপর সম্পূর্ণ একটা আর্টিকেল
  • “কুকুরকে ট্রেইন করার সময়ের সবথেকে বেশী ১০ টা ভুল” এরকম একটা আর্টিকেল
  • আপনি যে প্রোডাক্টটা প্রমোট করতে চান তার উপর সম্পূর্ণ একটা রিভিউ
  • কুকুরেরা কেমন স্মার্ট হতে পারে তার উপর একটা আর্টিকেল

আজকের কাজঃ আপনার ব্লগ ইন্সটল করে কমপক্ষে একটা পোস্ট করুন সেখানে। আগামীকাল আপনাদেরকে বলবো কিভাবে এমন একটা পোস্ট তৈরি করা যায় যেটা গুগল থেকে অনেক বেশী ট্রাফিক নিয়ে আসবে।

পোস্ট ভালো লাগলে আপনার বন্ধুকে শেয়ার করতে ভুলবেন না।

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং সম্পর্কে আরও বিস্তারিত জানতে আমাদের অনলাইন ট্রেনিং সেন্টারে ফ্রি একাউন্ট করে নিতে পারেন। এখানে প্রতি মাসেই আমরা ১/২ টি অনলাইন এবং অফলাইন লাইভ ইভেন্ট করে থাকি আপডেটেড মার্কেটিং স্ট্রেটিজি নিয়ে।

ভিডিও আকারে এই সিরিজ টি চাইলে নিচে কমেন্ট করে আপনার মতামত দিন। ধন্যবাদ।

Comments (2)
  • u r such a great man in the world…

  • Your article is very important for seo. I can learn many information for your article.

Comments are closed.